সাধারণ বীমা কর্পোরেশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩০ August ২০১৭

কৃষির উপর নতুন প্রজেক্ট


প্রকাশন তারিখ : 2014-12-09

আবহাওয়া সূচকভিত্তিক শস্য বীমা প্রকল্প

কৃষি প্রধান বাংলাদেশে প্রতি বছর অতিবৃষ্টি, বন্যা, খরা, ঘূর্নিঝড় ইত্যাদি প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে কৃষি-অর্থনীতিসহ বাংলাদেশের কৃষকবৃন্দ ভীষণভাবে  ক্ষতিগ্রস্ত হয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগের নেতিবাচক প্রভাব প্রশমনের লক্ষ্যে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) এর অনুদানে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের আওতায় রাষ্ট্রায়ত্ব প্রতিষ্ঠান সাধারণ বীমা কর্পোরেশন (এসবিসি) ও বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর (বিএমডি) কর্তৃক রাজশাহী, সিরাজগঞ্জ ও নোয়াখালী জেলায় পরীক্ষামূলকভাবে আবহাওয়া সূচকভিত্তিক শস্য বীমা প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে, যা বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একটি নতুন প্রায়োগিক ধারণা। আবহাওয়া কেন্দ্র হতে প্রাপ্ত আবহাওয়াজনিত তথ্য উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে এ বীমা পলিসি প্রস্তুত করা হয় এবং প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতেই বীমা দাবী পরিশোধ করা হয়। ভারত, শ্রীলংকা, ইন্দোনেীশয়া, থাইল্যান্ড, ফিলিপাইন, মেক্সিকোসহ বিশ্বের বিভিন্ন উন্নয়নশীল কৃষিপ্রধান দেশে ইতোমধ্যে এই বীমা ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। 

প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হলো আবহাওয়া সূচকভিত্তিক শস্য বীমার মাধ্যমে জলবায়ু ও প্রাকৃতিক দুর্যোগজনিত ঝুঁকির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের আর্থিক ক্ষতি হ্রাস করা। প্রকল্পের আওতায় প্রকল্পভুক্ত জেলায় মোট ২০টি স্বয়ংক্রিয় আবহাওয়া কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। ইতোমধ্যে, ৪টি পাইলটিং এর আওতায় ৬,৭৭২জন কৃষকের অনুকূলে অতিবৃষ্টিপাতজনিত বন্যা, খরা, ঘুর্নীঝড় ও অতিবৃষ্টিজনিত ঝুঁকি আবরিত করে  আবহাওয়া সূচক-ভিত্তিক পরীক্ষামূলক শস্য বীমা পলিসি ইস্যু করা হয়েছে। প্রথম তিনটি পাইলটিং এর আওতায় আমন ধান ও আলু ফসলের অনুকূলে ৫,৩৯৯টি আবহাওয়া সূচক ভিত্তিক শস্য বীমাপত্র ইস্যু করা হয়েছে। উক্ত বীমা পলিসির বিপরীতে উত্থাপিত বীমা দাবী ১৭,৫৪,৩১৪.০০ টাকা বীমা গ্রহীতা কৃষকদেরকে সাধারণ বীমা কর্পোরেশনের নিজস্ব তহবিল হতে পরিশোধ করা হয়েছে ।

প্রকল্পের ৪র্থ পাইলটিং এর আওতায় প্রকল্পভুক্ত তিনটি জেলায় বোরো ধানের বিপরীতে মোট ১,৩৭৩টি পলিসি ইস্যু করা হয়েছে এবং ভ্যাটসহ ৮,৪৮,২৪০.০০ টাকা প্রিমিয়াম অর্জিত হয়েছে। উক্ত পলিসিসমূহের বিপরীতে মোট ৩২,৮৩,১০০.০০ টাকা বীমাদাবী সাধারণ বীমা কর্পোরেশন কর্তৃক পরিশোধ করা হচ্ছে। তন্মধ্যে, নোয়াখালী জেলায় ৪২৬ বিঘা জমির অনুকূলে ৪০০ টি আবহাওয়া সূচকভিত্তিক শস্যবীমা পলিসি ইস্যু করা হয়েছে এবং ইস্যুকৃত পলিসির বিপরীতে উত্থাপিত বীমা দাবী ৩,৭০,১০০.০০ টাকা সাধারণ বীমা কর্পোরেশন কর্তৃক পরিশোধ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, উক্ত বীমা পলিসির বিপরীতে কৃষকদের বিঘাপ্রতি ভ্যাটসহ মোট প্রিমিয়াম ছিল ৬৯০.০০ টাকা। তন্মধ্যে সরকার কর্তৃক বিঘাপ্রতি ভ্যাটসহ প্রিমিয়াম বাবদ ৩৯০.০০ টাকা ভর্তুকি প্রদান করা হয়েছে এবং অবশিষ্ট প্রিমিয়াম ৩০০.০০ টাকা কৃষকদের নিকট হতে গ্রহণ করা হয়েছে।  

প্রকল্পের আওতায় প্রকল্পভুক্ত তিনটি জেলায় মোট ৪টি পাইলটিং এর মাধ্যমে এ পর্যন্ত সর্বমোট ৬,৭৭২ জন কৃষকের অনুকূলে আবহাওয়া সূচকভিত্তিক শস্য বীমাপত্র ইস্যু করা হয়েছে। FGD, ট্রেনিং এবং বিভিন্ন সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ১৩,৫৪৪ জন কৃষককে WIBCI সম্পর্কে সচেতন (sensitize) করা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় ট্রেনিং প্রোগ্রাম/ওয়ার্কশপ/সেমিনার এর মাধ্যমে বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার প্রতিষ্ঠানের ৯০০ জনেরও অধিক কর্মকর্তাকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। বর্তমানে প্রকল্পের আওতায় কৃষকদেরকে আবহাওয়া সূচকভিত্তিক শস্যবীমা বিষয়ে বিভিন্ন সচেতনতামূলক কার্যক্রমের পাশাপাশি বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমও চলমান রয়েছে। এছাড়াও বর্তমানে রাজশাহী জেলায় ৫ম পাইলটিং এর মাধ্যমে আমন ধানের অনুকূলে আবহাওয়া সূচকভিত্তিক শস্যবীমা পলিসি ইস্যুর কার্যক্রম চলছে।


Share with :
Facebook Facebook